সাম্রাজ্যবাদ

৳ 320.00

ফরহাদ মজহার বিশ্বব্যবস্থার আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক রাজনীতির প্রেক্ষাপটে রাজনৈতিক জনগোষ্ঠী হিশেবে আত্মবিকাশের লড়াইয়ে বাংলাদেশের বিপদ-আপদক সম্পর্কে হুশিয়ার হওয়ার তাগিদে লিখছেন দীর্ঘদিন। পরাশক্তির আগ্রাসন ও দখলদারি প্রতিরোধে গণশক্তি বিকাশের উপায় ও তৎপরতা সন্ধানে তিনি নিরলস। পত্রপত্রিকায় তার লেখালেখি গণনকজরদারি তীক্ষ্ণ ও তীব্র করার প্রচেষ্টায় নিয়োজিত মতাদর্শিক লড়ায়েরই অংশ। সংখ্যাগরিষ্ঠের স্বার্থের জায়গায় দাঁড়িয়ে  কৃষক শ্রমিক জনতার বৈপ্লবিক মৈত্রী সম্পন্ন করে বিদ্যমান ব্যববস্থার রূপান্তর সাধনই তাঁর অভিষ্ঠ। দুনিয়ার হালহকিকতে ইতোমধ্যে বিস্তর পরিবর্তন ঘটে গিয়েছে। সাম্রাজ্যবাদ ইসলামকে শক্র গণ্য করে সন্ত্রাসবাদের নামে অনন্ত যুদ্ধ শুরু করেছে। ফিলিস্তিন ইরাক আফগানিস্তানের মতো আমরাও এই যুদ্ধের টার্গেট। রাষ্ট্রের আভ্যন্তরীণ পরিগঠনের সংকট ও শক্র-মিত্র নির্ধারণের দুর্বলতায় সাম্রাজ্যবাদের নখর-থাবা ক্রমশ বিস্তৃত হচ্ছে আমাদের চোখের সামনে। একদিকে বাংলাদেশের জ্বালাণি সম্পদ ও প্রাণবৈচিত্রের উপর শকুনে নজর অন্যদিকে তথাকথিত আধুনিক কিম্বা প্রগতিশীল নামধারী একটা শ্রেণীর যেখানে সেখানে মৌলবাদ আর জঙ্গিবাদের ছায়া দেখে বেড়ানো- চৌদ্দ কোটি মানুষকে অরক্ষিত ও বিপদাপন্ন করে তুলেছে। বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ ও অকার্যকর রাষ্ট্র প্রমাণ করার মধ্যদিয়ে দেশের মানুষগুলোকে ইরাক আফগানিস্তানের মতো ভয়বহ পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দেওয়ার সাম্রাজ্যবাদী প্রকল্পে সজ্ঞানে বা অজ্ঞানে শরিক হচ্ছে। সাম্রাজ্যবাদী সঙ্গে প্রত্যক্ষ প্রতিরোধ যুদ্ধেরত ইরাক আফগানিস্তান ও ফিলিস্তিনের মুক্তিকামি মানুষের অসাধারণ শক্তি ও আত্মত্যাগের তাৎপর্য লেখক ফরহাদ মজহার ইতিহাসের রঞ্জিত দেয়াল লিখন থেকে পাঠ করেন। সমসাময়িক কালে বাংলাদেশের ঘটনাঘটন বোঝার চেষ্টা করেন, বিশ্বব্যাপী সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধনীতির গতিপ্রকৃতি, বিভাজন ও স্নায়ু যুদ্ধোত্তর নতুন মেরুকরণের চরিত্র এবং আঞ্চলিক রাজনীতিতে ভারতীয় পররাষ্ট্রনীতির আগ্রাসী ভূমিকা বিচার করে। ফরহাদ মজহার-এর লক্ষ্য গণঐক্য সৃষ্টির মাধ্যমে বাংলাদেশের রাজনৈতিক বিকাশের পথ সুগম করা আর গণপ্রতিরক্ষা নীতির আলোকে জনগোষ্ঠীর নিরাপত্তার সুরক্ষা। লেখকের দৃঢ় বিশ্বাস এটাই বর্তমানে সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের জয়ী হবার ক্ষেত্রে কার্যকর রণকৌশল।